আজ | রবিবার, ২৫ আগস্ট ২০১৯
Search

খালেদার মুক্তির দাবিতে ঈদের পর আন্দোলন

১:৫৩ অপরাহ্ন, ৪ আগস্ট, ২০১৯

chahida-news-1564905226.jpg

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তির বিষয়ে দলের পক্ষ থেকে কিংবা আইনি কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি। ঈদের পর তার স্বাভাবিক মুক্তির দাবিতে আন্দোলনের ইঙ্গিত দিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে শনিবার বিকালে দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠক শেষে সংবাদ ব্রিফিংয়ে একথা জানান মির্জা ফখরুল। বলেন, ঈদের পর খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন বেগবান করা হবে। সেজন্য বিভাগীয় সমাবেশগুলো দ্রুত শুরু করা হবে।

প্যারোলে মুক্তি নিয়ে খালেদা জিয়া সৌদি আরব যাচ্ছেন- কয়েকটি গণমাধ্যমে প্রকাশিত এমন সংবাদের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে বিএনপি মহাসচিব বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। তাই আমি এ সম্পর্কে কিছুই বলব না। আসলে প্যারোলের ব্যাপারে আমরা এখন পর্যন্ত কোনো উদ্যোগই নিইনি। কোথাও কোনো চিঠিও দেয়নি, আইনি কোনো পদক্ষেপও নেয়া হয়নি। সুতরাং এ নিয়ে কোনো কথার সুযোগ নেই।

সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল ডেঙ্গু রোগীদের বিনামূল্যে চিকিৎসার জন্য সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতলে প্রয়োজনীয় ভর্তুকি দেয়ার দাবি জানান।

তিনি বলেন, ডেঙ্গু চিকিৎসায় জন্য প্রয়োজনীয় ভর্তুকি এবং জনগণের জন্য ডেঙ্গু জ্বরের বিনামূল্যে পরীক্ষার ব্যবস্থা করতে সরকারের কাছে প্রস্তাব করছি। সরকার বিভিন্ন সেক্টরে অনেক টাকা খরচ করছে, প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে তাদের পছন্দের ব্যক্তিদের পিছনে কোটি কোটি টাকা খরচ করা হচ্ছে। কিন্তু সমাজ ও রাষ্ট্রের মানুষ যখন বিপদে পড়ছে তখন তাদের জন্য এই অর্থ (ত্রাণ তহবিলের) ব্যবহার করাটা অত্যন্ত জরুরি।

জরুরী অবস্থা নিয়ে নিজের বক্তব্যে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছে দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, ডেঙ্গু একটা বড় রকমের সমস্যা। যেটা মোকাবিলায় আপদকালীন জরুরি ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেছিলেন তিনি। বন্যা পরবর্তী দূর্গতদের মধ্যে কেন্দ্রীয় ত্রাণ কমিটির নেতৃত্বে ড্যাব দুর্গত এলাকায় ওষুধ-পত্র বিতরণ ও চিকিৎসা সেবা দেয়া হবে বলে জানান তিনি। একইসঙ্গে কৃষকদের কৃষি পূর্ণবাসনের জন্য দলের ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টুর নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটিতে কৃষক দল ও এগ্রিকালচারিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ থাকবেন বলে জানান বিএনপি মহাসচিব।

বৈঠকে মহাসচিব ছাড়া দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু উপস্থিত ছিলেন।

লন্ডন থেকে স্কাইপে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও যুক্ত ছিলেন।

  

আপনার মন্তব্য লিখুন