আজ | শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯
Search

বিএসএমএমইউ’র কাণ্ডে মামলা

২:০৫ অপরাহ্ন, ১২ জুন, ২০১৯

chahida-news-1560326708.jpg

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসক নিয়োগ পরীক্ষা বন্ধের দাবিতে আন্দোলনকারী চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনের নামে অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি সৃষ্টিসহ ভিসির কার্যালয় ভাঙচুরের অভিযোগ আনা হয়েছে।

বিএসএমএমইউ’র ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর অধ্যাপক ডা. সৈয়দ মোজাফফর আহমেদ বাদী হয়ে গতকাল মঙ্গলবার রাতে শাহবাগ থানায় মামলাটি দায়ের করেছেন। মামলায় ১৫ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ৪০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুল হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বিএসএমএমইউর ঘটনায় ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর বাদী হয়ে রাতে একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় ১৫ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়াও অজ্ঞাতনামা আরও ৪০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

এর আগে গতকাল মঙ্গলবার চিকিৎসকদের আন্দোলনের মুখে বিএসএমএমইউর চিকিৎসক নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, ‘ভাইভা স্থগিত করা হয়েছে। এ বিষয়ে সিন্ডিকেট বোর্ডে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

বেশ কয়েকদিন ধরে লিখিত পরীক্ষায় অনিয়মের অভিযোগে বিএসএমএমইউর ২০০ মেডিকেল অফিসার নিয়োগ পরীক্ষার ফল বাতিল ও উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়ার পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন চিকিৎসকরা।

গত ২০ মার্চ অনুষ্ঠিত ওই পরীক্ষার ফলাফল ১২ মে প্রকাশের পরপরই তাতে অনিয়মের অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ শুরু করেন শতাধিক চিকিৎসক। তাদের অভিযোগ, ভর্তি পরীক্ষার ফলাফলে নজিরবিহীন অনিয়ম হয়েছে। উপাচার্য ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকসহ তাদের স্বজনদের নিয়োগ দিতে ফলাফল টেম্পারিং করা হয়েছে।

মঙ্গলবার আন্দোলনরত চিকিৎসকদের সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করেন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) নেতারাও। তবে গতকাল আন্দোলনরত চিকিৎসকদের ওপর পুলিশ ব্যাপক লাঠিপেটা করে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও স্বাচিপের নেতাকর্মীসহ অনেক চিকিৎসক আহত হন।

এর আগে ৯ জুনও উপাচার্যের সঙ্গে কথা বলতে গেলে আন্দোলনরত চিকিৎসকদের সঙ্গে পুলিশ ও আনসারদের সংঘর্ষ হয়।

  

আপনার মন্তব্য লিখুন