আজ | সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯
Search

‘যা পারো না, করো না’ : পাকিস্তানি মন্ত্রী

২:২১ অপরাহ্ন, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

chahida-news-1567844470.jpg
ফাইল ছবি

ভারতীয় মহাকাশ যান চন্দ্রযান-২ চাঁদে অবতরণের শেষ মুহূর্তে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এরপর থেকে ভারতে চলছে শোকের মাতম। অশ্রু দেখা গেছে দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির চোখের কোণেও। এবার ভারতীয়দের কাটা ঘাঁয়ে নুনের ছিটা দিলেন পাকিস্তানের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী। ‘যে কাজ পারো না, করো না’ বলে ভারত কটাক্ষ করলেন তিনি।

চন্দ্রযান-২ এর ব্যর্থতার পর ফাওয়াদ চৌধুরী টুইটারে লিখেন, ‘অঅঅ… যে কাজটা পারো না, সেটা করারই দরকার নেই। প্রিয় এন্ডিয়া।’ ভারতকে অপমান করার জন্য ইন্ডিয়া বানানটি ভুল নয়, সচেতনভাবে লিখেছেন বলেও মনে করছেন অনেকেই।

এ টুইট করার পর অনেক ভারতীয়ই তার সমালোচনা করেছেন। ভারতীয় এক নেটিজেন লিখেন, ‘মজার বিষয় হলো, চন্দ্রযান-২ ফাওয়াদ চৌধুরীকে সারা রাত জাগিয়ে রেখেছিল।’

আরও নানা সমালোচনার পরও থেমে যাননি ফাওয়াদ চৌধুরী। এক নেটিজেনের টুইটের প্রতিক্রিয়ায় তিনি লিখেন, ‘ঘুমিয়ে পড়ো, চাঁদের বদলে ওই খেলনাটা মুম্বাইয়ে নেমেছে।’

সমালোচনার জবাব দিতে গিয়ে তিনি লিখেন, ‘ভারতীয়রা অদ্ভুত প্রতিক্রিয়া দিচ্ছে। যেন আমার জন্য মিশন ব্যর্থ হয়েছে। আমি বলেছিলাম অকারণে ৯০০ কোটি টাকা নষ্ট করতে? এবার মাথা ঠাণ্ডা করে ঘুমিয়ে পড়ুন।’

ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদিকেও সমালোচনা করতে ছাড়েননি এ পাক মন্ত্রী। তিনি লিখেন, ‘মোদির কথা শুনে মনে হচ্ছে, তিনি রাজনীতিবিদ নন, মহাকাশচারী। লোকসভায় মোদিকে প্রশ্ন করা উচিত, কেন গরিব দেশের ৯০০ কোটি টাকা এভাবে নষ্ট করা হলো।’

উল্লেখ্য, গতকাল শুক্রবার রাতে চাঁদের পৃষ্ঠ স্পর্শ করার আগেই নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে ভারতের পাঠানো চন্দ্রযান–২ এর। চূড়ান্ত অবতরণের আগে ওই রোবোটিক গবেষণা যানটি চন্দ্রপৃষ্ঠে আছড়ে পড়েছে কি না, তা নিয়ে উদ্বেগ ছড়িয়েছে।

ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশনের (ইসরো) পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, একবারে শেষ মুহূর্তে বিক্রম ল্যান্ডারের সঙ্গে নিয়ন্ত্রণ কক্ষের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে এটি নামার কথা ছিল।

  

আপনার মন্তব্য লিখুন