আজ শুক্রবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮ |
Search

প্রচ্ছদ জাতীয় কোটা সংস্কার: ২ দিনের মধ্যে মামলা তুলে না নিলে ফের আন্দোলন

৬৬  বার পড়া হয়েছে

কোটা সংস্কার: ২ দিনের মধ্যে মামলা তুলে না নিলে ফের আন্দোলন

অনলাইন | ২:৫৪ অপরাহ্ন, ১৬ এপ্রিল, ২০১৮

  

chahida-news-1523868845.jpg

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারী অজ্ঞাতনামা শিক্ষার্থীদের নামে শাহবাগ থানায় দায়ের করা মামলা দুই দিনের মধ্যে তুলে না নিলে আবারও আন্দোলনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। সোমবার (১৬ এপ্রিল) বেলা পৌনে ১২টার দিকে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে এ ঘোষণা দেওয়া হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে সংগঠনটির পক্ষ থেকে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলন থেকে বলা হয়, ‘যদি আগামী দুই দিনের মধ্যে সেই মামলাগুলো প্রত্যাহার করা না হয়, তাহলে প্রয়োজনে আমরা আবার আন্দোলনে যাবো।’

এসময় লিখিত বক্তব্যে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুর বলেন, ‘আমাদের ন্যায্য দাবি আদায়ের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে পুলিশ নির্মমভাবে হামলা চালায়। সেই হামলায় সাধারণ শিক্ষার্থীরা অহত হয়েছেন। আবার সেই সাধারণ শিক্ষার্থীদের নামেই মামলা করা হয়েছে। আন্দোলন থেকে সরে আসার কয়েকটি দাবির মধ্যে একটি দাবি ছিল- সাধারণ শিক্ষাথীদের নামে করা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত সেই মামলা প্রত্যাহার করা হয়নি। যদি আগামী দুই দিনের মধ্যে সেই মামলাগুলো প্রত্যাহার করা না হয়, তাহলে প্রয়োজনে আমরা আবার আন্দোলনে যাবো।’

তিনি আরও বলেন, ‘উপাচার্যের বাড়িতে যারা হামলা করেছে, তারা আমাদের আন্দোলনকারী ছাত্র নয়। যারা ন্যাক্কারজনকভাবে হামলা করেছে, তাদের খুঁজে বের করে বিচারের দাবি জানাচ্ছি।’

প্রধানমন্ত্রীকে সংগঠনের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানিয়ে সম্মেলনে নুরুল হক নুর বলেন, ‘আমরা প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। কারণ যারা আহত হয়ে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন, গতকাল (রবিবার) তাদের ফ্রি চিকিৎসা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। এছাড়াও এতোদিন ধরে আহতরা নিজ খরচে যে চিকিৎসা করেছেন, সে টাকাও ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী আমাদের দাবি মেনে নিয়েছেন। সেজন্য আমরা আন্দোলন স্থগিত করেছি। কিন্তু একটি কুচক্রী মহল আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য আমাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। সরকারের বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা কোটা সংস্কার আন্দোলেনের পেছনে কোনও ধরনের ষড়যন্ত্র খুঁজে পায়নি।’

এসময় দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার একটি খবরের প্রতিবাদ জানিয়ে যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক আহমদ বলেন, ‘দৈনিক ইত্তেফাক আমাদের ন্যায্য দাবি কোটা সংস্কার আন্দোলনকে বিতর্কিত করতে আমাদের চার নেতার (একজন আহ্বায়ক ও তিন যুগ্ম আহ্বায়ক) নামে মিথ্যা ও বানোয়াট খবর ছেপেছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই। একইসঙ্গে এই পত্রিকাটির রিপোর্টার, বার্তা সম্পাদক, এবং সম্পাদকসহ সংশ্লিষ্ঠরা যদি আজ বিকাল ৫টার মধ্যে এই খবর প্রত্যাহার করে দুঃখ প্রকাশ না করেন, তাহলে আগামীকাল থেকে দেশের সকল কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, জেলা-উপজেলা-মহানগরসহ বিভিন্ন জায়গায় এই পত্রিকাটি বর্জন করা হবে।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন, যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খানসহ অন্যান্যরা।  

  

Post Your Comment