আজ শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ |
Search

প্রচ্ছদ জাতীয় তাবলিগের দু’পক্ষকে নিয়ে বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

৬৪  বার পড়া হয়েছে

তাবলিগের দু’পক্ষকে নিয়ে বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক | ৬:৩২ অপরাহ্ন, ১১ জানুয়ারী, ২০১৮

  

chahida-news-1515673930.jpg

আমির ও দিল্লির মুরুব্বি মাওলানা সা’দ কান্ধলভীর অংশগ্রহণ নিয়ে বিতর্কের মধ্যে তাবলিগ জামাতের বিবাদমান দু’পক্ষকে নিয়ে বৈঠকে বসেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। বৃহস্পতিবার বিকেলে সাড়ে তিনটার দিকে সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে এ বৈঠক শুরু হয়। প্রথমে মাওলানা সা’দের বিরোধী পক্ষের প্রধান মাওলানা আশরাফের নেতৃত্বে ১৫/২০ জন মন্ত্রীর কক্ষে প্রবেশ করেন। এর পরপরই সা’দের পক্ষের তাবলিগ জামাতের শুরা সদস্য মাওলানা ওয়াসিব বৈঠকে যোগ দেন।

সেখানে আরো উপস্থিত আছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব ছাড়াও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রধানরা।

মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা শরিফ মাহমুদ অপু পরিবর্তন ডটকমেক বলেন, ‘অল্প সময়ের মধ্যেই বৈঠক শেষ হবে। বৈঠক শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলবেন।’

তবে বৈঠকে যোগ দেওয়ার আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল সাংবাদিকদের বলেন, ‘মাওলানা সা’দ ইজতেমায় অংশ নিবেন কি না তা একান্তই তাদের নিজস্ব বিষয়। তবে দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব আমাদের। এই ইস্যুতে যাতে কোনো বিশৃঙ্খলা না হয়, সেজন্য আমরা সতর্ক রয়েছি। এ ব্যাপারে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।’

টঙ্গীর তুরাগ তীরে আগামী ১২ জানুয়ারি ও ১৯ জানুয়ারি দু’দফায় তিন দিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম দফায় ১৪ জানুয়ারি ও দ্বিতীয় দফায় ২১ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাত হবে।

ইজতেমার ‘শান্তি ও নিরাপত্তার স্বার্থে’ গত ৭ জানুয়ারি যাত্রাবাড়ীতে জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম মাদানিয়ায় তাবলিগের শুরা সদস্য ও আলেমদের বৈঠক হয়। সেখানে এবারের ইজতেমায় মাওলানা সা’দ এর না আসার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়।

‘তাবলিগ করা ছাড়া কেউ বেহেশতে যেতে পারবে না’ মূলত মাওলানা সা’দের এমন বক্তব্যের জের ধরে বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়।

এরই মধ্যে আমিরের পদ থেকে মাওলানা মুহাম্মদ সা’দকে সরিয়ে দেওয়া হলে বিশ্ব ইজতেমা বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়ায় স্থানান্তরের হুমকি দিয়েছে মালয়েশিয়া তাবলিগের শুরা কর্তৃপক্ষ।

বিক্ষোভের মধ্যেই বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নিতে গতকাল বুধবার বিমানে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান মাওলানা সা’দ। পরে তাকে পুলিশ পাহারায় কাকরাইল মসজিদে নিয়ে যাওয়া হয়।

মাওলানা সা’দের ভিসা বাতিল ও বাংলাদেশে আসা ঠেকাতে বিরোধীরা বুধবার বিকেল থেকে বিমানবন্দর ও ডেমরা এলাকায় বিক্ষোভ করেন। এরই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবারও রাজধানীতে বিক্ষোভ হয়। এতে তীব্র যানজটে জনজীবনে টানা দ্বিতীয় দিনের মতো নাভিঃশ্বাস নেমে আসে।

বৃহস্পতিবার বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের উত্তর গেটে বিক্ষোভ কর্মসূচি থেকে হেফাজতে ইসলাম হুঁশিয়ারি দিয়েছে, বৃহস্পতিবার সূর্য ডুবার আগেই মাওলানা সা’দকে ঢাকা থেকে দিল্লি পাঠানো না হলে আগামীকাল শুক্রবার থেকে গাড়ি-ঘোড়া সব বন্ধ করে অবরোধ পালন করা হবে।

  

Post Your Comment