আজ সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭ |
Search

প্রচ্ছদ স্বাস্থ্য মজবুত ও সুস্থ হাড়ের জন্য

৭৬  বার পড়া হয়েছে

মজবুত ও সুস্থ হাড়ের জন্য

অনলাইন ডেস্ক | ১১:৫৮ পূর্বাহ্ন, ১৫ অক্টোবর, ২০১৭

  

chahida-news-1508047134.jpg

একটু বয়স হলেই হাড়ের নানা সমস্যা দেখা দেয়। এর অন্যতম কারণ ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডির অভাব। নারীদের ক্ষেত্রে ৩০ পার হলেই হাড়ের বিভিন্ন সমস্যা দেখা দিতে থাকে। কারণ প্রয়োজন বুঝে গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন ও খনিজ উপাদানগুলো তারা গ্রহণ করার বেলায় প্রায় উদাসীনই থাকেন বলা যায়। অস্টিওপরোসিস ও রিকেটের মতো শারীরিক ব্যাধি এড়াতে কৈশোরের আগে থেকেই উচিত হাড়ের উপকারী খাবারে অভ্যস্ত হওয়া।

ভিটামিন ডি ও ক্যালসিয়াম হাড়ের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দুটি উপাদান। ক্যালসিয়াম হচ্ছে সেই খনিজ উপাদান, যা শরীরের কার্যপ্রক্রিয়া সঠিকভাবে পরিচালনা করে। অন্যদিকে ভিটামিন ডি ক্যালসিয়াম শুষে নিতে শরীরকে সহায়তা করে। ফলে এ দুটি উপাদানের অভাবে দেখা দিতে পারে হাড়ের ভঙ্গুরতাসহ নানা সমস্যা। জেনে নিন ১০টি সহজলভ্য খাবারের নাম, যা হাড় মজবুত রাখতে সহায়ক—

গাঢ় সবুজ শাকসবজি

গাঢ় সবুজ রঙের শাকসবজি ক্যালসিয়ামের শক্তিশালী উত্স। সয়াবিন, পালংশাক, বাঁধাকপি ইত্যাদিতে রয়েছে প্রচুর ক্যালসিয়াম। তাছাড়া পালংশাকের মধ্যকার অক্সালিক অ্যাসিড আমাদের শরীরের ক্যালসিয়াম শুষে নেয়ার ক্ষমতা বাড়ায়।

কলিজা

এতে রয়েছে উচ্চমানের প্রোটিন ও আয়রন, যা শরীর সহজেই শুষে নিতে পারে। রয়েছে সব ধরনের ভিটামিন বি। এর মধ্যকার ভিটামিন এ এবং খনিজ উপাদান কপার, জিংক, ক্রোমিয়াম, ফসফরাস ও সেলেনিয়াম হাড় তথা শরীরের জন্য উপকারী।

স্যালমন

চর্বিযুক্ত মাছ স্যালমন ভিটামিন ডির অন্যতম ভালো উত্স। তাছাড়া এতে রয়েছে পর্যাপ্ত ক্যালসিয়ামও।

আমন্ড বাটার

অন্য সব ধরনের বাদামের চেয়ে আমন্ডে রয়েছে সবচেয়ে বেশি পরিমাণে ক্যালসিয়াম। যখন এটি আমন্ড মাখন হিসেবে ব্যবহার করা হয়, তখন এর উপযোগিতা আরো বাড়ে। আমন্ড বাটার কেবল ক্যালসিয়ামেরই ভালো উত্স নয়, এতে রয়েছে উচ্চমানের প্রোটিন। এটি কোলেস্টেরলমুক্ত এবং এতে ফ্যাটের পরিমাণ বেশ কম।

পনির

পনির তৈরি হয় দুধ থেকে। আমরা সবাই জানি দুধে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম। সুতরাং পনিরেও থাকে ওই পরিমাণেই ক্যালসিয়াম। সব ধরনের পনিরেই তো রয়েছে কিন্তু মোজারেলা পনিরে ক্যালসিয়াম সবচেয়ে বেশি।

টক দই

বহু প্রাচীনকাল থেকেই টক দই রন্ধনশিল্পে ব্যবহূত অত্যন্ত পরিচিত একটি নাম। প্রস্তুত প্রক্রিয়ার কারণে টক দই দুধের চেয়ে অনেক বেশি ক্যালসিয়ামসমৃদ্ধ। ফলে এটি মজবুত হাড়ের জন্য অন্যতম একটি খাবার।

টুনা

মজাদার ও স্বাস্থ্যকর এ মাছ ভিটামিন ডিতে ভরপুর। শুধু তাই নয় এতে আরো রয়েছে প্রচুর পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম ও ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড, যা হাড়ের জন্য তো উপকারীই সঙ্গে পুরো শরীরের জন্য ভালো।

ডিম

যারা ওজন ঠিক রাখতে নিরামিষভোজী হয়ে গেছেন, তাদের জন্য সুখবর— ডিমে রয়েছে ভালো পরিমাণে ভিটামিন ডি, যা হাড়ের সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে সহায়তা করে। সেক্ষেত্রে ডিম খেতে হবে কসুমসহ, কারণ অধিকাংশ ভিটামিন থাকে কুসুমেই।

ব্রোকলি

গাঢ় সবুজ রঙের ব্রোকলি ক্যালসিয়ামসমৃদ্ধ। এতে আরো আছে ভিটামিন সি, ফাইবার ও ক্যান্সার প্রতিরোধক উপাদান।

দুধ

হাড়ের সুরক্ষায় সবচেয়ে সেরা খাবার এটি। ক্যালসিয়াম ও ভিটামিনে পূর্ণ দুধ হাড় মজবুত ও সুস্থ রাখে। ঠিক এ কারণেই শিশুদের প্রতিদিন দুধ খাওয়ার কথা বলা হয়। বলে রাখা ভালো, সব ধরনের দুগ্ধজাত খাবার হাড়ের জন্য উপকারী।

  

Post Your Comment