আজ বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ |
Search

প্রচ্ছদ বিনোদন সালমানের শুটিং সেটে বন্দুকধারী, বাড়িতে পৌঁছে দিল পুলিশ

১৪৭  বার পড়া হয়েছে

সালমানের শুটিং সেটে বন্দুকধারী, বাড়িতে পৌঁছে দিল পুলিশ

অনলাইন ডেস্ক | ৬:৫৪ অপরাহ্ন, ১১ জানুয়ারী, ২০১৮

  

chahida-news-1515675243.jpg

কয়েক দিন আগেই বলিউড অভিনেতা সালমান খানকে প্রাণে মারার হুমকি এসেছিল। এ বার তার শুটিং সেটে হানা দিল বন্দুকধারীরা।

মুম্বই মিরর-এর একটি প্রতিবেদনে জানানো হয়, ঘটনাটি ঘটেছে গত মঙ্গলবার মুম্বাইয়ের ‘ফিল্ম সিটি’-তে। সকাল থেকেই হইহই করে শুটিং চলছিল সালমান খানের পরবর্তী ছবি ‘রেস ৩’-র।

বার বার খুনের হুমকি আসায় সেটে উপস্থিত ছিলেন সালমানের দেহরক্ষীরাও। হঠাৎ খবর আসে, সেটে কয়েক জন বহিরাগত ঢুকে পড়েছে। তাদের প্রত্যেকের হাতে আধুনিক আগ্নেয়াস্ত্র। তড়িঘড়ি ঘটনাস্থলে পৌঁছায় শুটিং বন্ধ করে দেয় পুলিশ। সেট থেকে সালমানকে বার করে সুরক্ষিত তার বান্দ্রার বাড়িতে পৌঁছে দেয় পুলিশ।

পুলিশের অনুমান, ওই দুষ্কৃতির সম্ভবত রাজস্থানের কুখ্যাত গ্যাংস্টার লরেন্স বিষ্ণোই-এর দলের লোক। ক’দিন আগেই সালমান খানকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেন রাজস্থানের ওই গ্যাংস্টার। জেলবন্দি ওই দুষ্কৃতি হুমকি দিয়েছিলেন রাজস্থানেই খুন করা হবে এই বলিউড অভিনেতাকে।

‘রেস ৩’ ছবির প্রযোজক রমেশ তরানির কথায়, 'সেটে তখন রেস ৩-র শুটিং চলছিল। পুলিশ শুটিং বন্ধ করার কথা বলে।

তারা জানায়, অভিনেতাকে দ্রুত বাড়ি পৌঁছে দিতে হবে। এর পর ছ’জন পুলিশ কর্মী সলমনকে তার বান্দ্রার বাড়িতে পৌঁছে দেয়।'

তবে, সেটে পুলিশ পৌঁছনোর সঙ্গে সঙ্গে দুষ্কৃতির আর কোনও খোঁজ মেলেনি। অত নিরাপত্তা সত্ত্বেও শুটিং সেটে ওই দুষ্কৃতিরা কী ভাবে ঢুকল এবং পরে কোথায় গা ঢাকা দিল সেই বিষয়ে পুলিশও কিছু নিশ্চিত করে জানাতে পারেনি।

মুম্বাই মিরর-এর রিপোর্ট অনুযায়ী, কৃষ্ণসার হত্যা মামলার ঘটনাকে ঘিরে সালমানের প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছিল গ্যাংস্টার লরেন্স বিষ্ণোইয়ের দলের লোকজন।

একটি মামলায় গত বৃহস্পতিবার জোধপুর আদালতে তোলা হয়েছিল লরেন্সকে। ঘটনাচক্রে ওই দিনই কৃষ্ণসার হত্যা মামলায় আদালতে হাজিরা দিতে গিয়েছিলেন সালমান।

পুলিশের অনুমান, অভিনেতাকে সামনে পেয়েই সম্ভবত খুনের হুমকি দেন লরেন্স। তিনি বলেছিলেন, 'সালমানকে যদি মারতেই হয়, তাহলে জোধপুরেই মারব। তখন সে বুঝবে আমাদের আসল পরিচয়। এখন, পুলিশ যদি চায় আমি আবার কোনও বড়সড় অপরাধ করি, তা হলে সলমনকে মেরেই সেটা করব। আর মারব জোধপুরেই।'

রাজস্থান-হরিয়ানায় অপরাধমূলক কাজকর্মে একেবারে উপরের দিকে নাম রয়েছে লরেন্স বিষ্ণোইয়ের। খুনের চেষ্টা, হুমকি, তোলাবাজি, ছিনতাই, অপহরণ-সহ ২০টি মামলা চলছে তার বিরুদ্ধে।

পুলিশের অনুমান, সালমানের সঙ্গে লরেন্সের বিরোধের সূত্রপাত ১৯৯৮ সালে কৃষ্ণসার হত্যার ঘটনাকে কেন্দ্র করে। রাজস্থানের বিষ্ণোই সম্প্রদায়ের মানুষ কৃষ্ণসার হরিণকে পুজো করে। এর সঙ্গে তাদের ধর্মীয় ভাবাবেগ জড়িয়ে রয়েছে বলেই মনে করছে পুলিশ।

মুম্বাই মিরর-এর রিপোর্টে বলা হয়েছে, তাই এই হুমকি এবং পরবর্তীতে শুটিং সেটে হামলা চালানোর চেষ্টা। মুম্বাই পুলিশের এক শীর্ষ আধিকারিকের কথায়, 'লরেন্সের হুমকিকে মোটেও হাল্কা ভাবে নিচ্ছি না আমরা। সলমনের সুরক্ষা ব্যবস্থা আরও বাড়িয়ে দেওয়া হবে।'

সেই সঙ্গে তিনি জানান, এর আগেও বহু বার খুনের হুমকি দেওয়া হয়েছে অভিনেতাকে। কিন্তু দেহরক্ষী ছাড়াই মুম্বাইয়ে রাস্তায় ঘুরে বেড়াতে দেখা যায় সলমন ও তার পরিবারের লোকজনকে। এর পর থেকে তার উপর নজরদারি আরও বাড়নো হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

  

Post Your Comment